প্রিয়,
তারিখ উল্লেখ করার প্রয়োজন মনে করলাম না।আশা করি এই দিন তোমার মনেও থাকবে না। তুমিতো খুব ভালো অভিনয় করতে। কিন্তু সেই অভিনয় এর জালে যে আমিও আটকে যাব সেতো ভাবিনি। জীবনের তিনটি বছর এখন মিথ্যে মনে হয় জানো? আচ্ছা কি ছিলো বাকি? তোমার কোনো ইচ্ছে আমিতো অপুর্ন রাখিনি, তবে কেন এতো অবহেলা? আমার ইচ্চে গুলো কি তোমার কাছে নিছকই মূল্যহীন? আমিতো বেশি কিছু চাইনি, চেয়েছিলাম শুধু একটি বিকেল যেখানে শ্রাবণের মেঘগুলো জ্ব্ররো হবে আকাশে, দিতে পারলে না আমায়?খুব বেশি কিছু কি ছিল এই চাওয়া? সব সময় কেন শুধু ব্যাস্ততার অজুহাত? অনুভূতি গুলোযে সেই ব্যাস্ততায় হারিয়ে যাচ্ছে। তার দায় কি কেবল আমারই? আমি কেন কখনো তোমার কবিতায় গল্পে জায়গা পাইনি প্রিয়? আমিকি নিছকই তোমার একাকিত্ব হ্রাসের সাথি? এর বেশি কিছু নই? আমিতো খুব বেশি কিছু চাইনি কারণ না পেয়ে পেয়ে চাওয়ার ইচ্ছে টাই যে শেষ করে দিয়েছ তুমি। আমার এক গাল অভিযোগ আর অভিমান তোমার কাছে ন্যাকামি ছাড়া কিছুই নয়। কেন এসেছিলে যদি আগলে নাইবা রাখবে? আমিওতো রক্তে মাংসে গড়া মানুষ, স্বাদ আল্লাদ আমারও আছে, কিন্তু সে তুমি কখনো বুঝলে না, তোমার সাথে স্বপ্ন দেখেছিলাম একসাথে হাত রেখে চলার কিন্তু সেই স্বপ্ন যে আজ ইতি টানতে চাইছে। যখন এই চিঠিটা পরবে হয়তো আর আমাকে কখনো পাবে না।কারণ সামনে আসলে হয়তো সহ্য করতে পারবো না তোমায়। কিন্তু আমার অনুপস্থিতি প্রতি মুহুর্তে টের পাবে, মনে করে নাও এটা আমার পক্ষ থেকে একটা শাস্তি। ভালো থেকো এই আশাই করবো। কিন্তু থাকতে পারবে কি? আমার মতো অন্য কেউ হয়তো পাবে না। যে তোমার রাগের কাছে হেরে যাবে সবসময়। চিঠিটা রেখে দিও প্রিয়, আমার দেয়া তোমাকে শেষ উপহার হিসেবে।

ইতি
তোমার অপ্রত্যাশিত প্রেরক

লেখক: সায়মা জান্নাত মিশি

Leave a Reply